| ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শত চেষ্টার পরেও শেষরক্ষা হল না,হারলো বিশাল ব্যবধানে

২০২২ জানুয়ারি ২৩ ২৩:৪১:৪২
শত চেষ্টার পরেও শেষরক্ষা হল না,হারলো বিশাল ব্যবধানে

শেষ রক্ষা হয়নি। ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচেও হেরেছে ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৪ রানে হেরেছে ভারত। ওয়ানডে সিরিজে তারা হেরেছে ০-৩ ব্যবধানে। গত সফরে টেস্ট সিরিজ হারার পর ওডিআই সিরিজে আধিপত্য বিস্তার করে ভারত। কিন্তু এবার ওয়ানডে সিরিজে কার্যত আত্মসমর্পণ করল কেএল রাহুলের দল। আগে ব্যাট করা হোক বা দৌড় তাড়া, কোনো কিছুতেই তারা সফল হয়নি। শেষ ম্যাচে দীপক চাহারের জোরালো পারফরম্যান্স কাজে আসেনি।

নিয়মরক্ষার ম্যাচে স্বাভাবিক ভাবেই দলে পরীক্ষা-নিরীক্ষার রাস্তায় হেঁটেছিল ভারত। রবিচন্দ্রন অশ্বিন, শার্দূল ঠাকুর, বেঙ্কটেশ আয়ার এবং ভুবনেশ্বর কুমারকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল। দলে এসেছিলেন সূর্যকুমার যাদব, জয়ন্ত যাদব, দীপক চাহার এবং প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ।

রবিবার ভারত শুরুটা ভালই করেছিল। আগের ম্যাচে প্রায় শতরানের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাওয়া জানেমন মালানকে ১ রানে ফিরিয়ে দেন দীপক। তেম্বা বাভুমা রান আউট হয়ে যান ৮ রানে। এমনকি দক্ষিণ আফ্রিকার বড় ভরসা এডেন মার্করামও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। কিন্তু কুইন্টন ডি’কক যতক্ষণ ক্রিজে থাকেন, ততক্ষণ দক্ষিণ আফ্রিকা চিন্তা করে না। রবিবারও সেটাই দেখা গেল। এই সিরিজের শুরু থেকে ভাল খেলে আসা রাসি ভ্যান ডার ডুসেনের সঙ্গে চতুর্থ উইকেটে ১৪৪ রানের জুটি গড়লেন তিনি। ওখানেই দক্ষিণ আফ্রিকার বড় রানের ভিত তৈরি হয়ে গেল। পরপর দুই ওভারে ডি’কক এবং ডুসেন ফিরে গেলেও দক্ষিণ আফ্রিকাকে লড়াকু স্কোরে পৌঁছে দিলেন ডেভিড মিলার (৩৯) এবং ডোয়েন প্রিটোরিয়াস (২০)। ২৮৭ রানে থামল দক্ষিণ আফ্রিকা।

২৮৭ রান এই উইকেটে খুব একটা খারাপ স্কোর নয়। এর আগে একদিনের ক্রিকেটে ২৮৮ রান তাড়া করে এই মাঠে কোনও দল জেতেনি। তার উপর ইনিংসের শুরুতেই অধিনায়ক কেএল রাহুলকে হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়ে গিয়েছিল ভারত। কিন্তু প্রথম ম্যাচের মতো তৃতীয় ম্যাচেও লম্বা জুটি গড়ে পতন বাঁচান শিখর ধবন এবং বিরাট কোহলী। দ্বিতীয় উইকেটে ৯৮ রান যোগ করেন তাঁরা। ৬১ রানে ধবন ফেরার পর সেই ওভারেই ফিরে যান ঋষভ পন্থ। দ্রুত দুটো উইকেট হারানোর পর ধরে খেলছিলেন কোহলী। যথেষ্ট ছন্দে দেখাচ্ছিল তাঁকে। কিন্তু তিন অঙ্কের রান এই ম্যাচেও এল না। ৬৫ রানে ফিরে গেলেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক।

মিডল অর্ডার পোক্ত করার জন্য এই ম্যাচে আনা হয়েছিল সূর্যকুমার যাদবকে। শ্রেয়স আইয়ার ছিলেনই। কিন্তু টানা তৃতীয় ম্যাচেও ভারতের মাঝের সারির ব্যাটাররা সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ। শ্রেয়স এবং সূর্যকুমার দু’জনেই শুরুটা ভাল করেও অহেতুক ভুল শট খেলে উইকেট হারালেন। ভারতের শেষ ভরসা ছিলেন জয়ন্ত। তিনিও ভুল শট খেলে আউট।

মনে করা হচ্ছিল সেখানেই ম্যাচ শেষ। কিন্তু ম্যাচ যে শেষ ওভার পর্যন্ত গড়াল, তার পিছনে রয়েছে চাহারের ব্যাট হাতে দুরন্ত পারফরম্যান্স। আইপিএল-এ আগে তাঁর ব্যাটের ঝলকানি দেখা গিয়েছে। রবিবার খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে থাকা দলকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত লড়াই করলেন। মাঝের সারির ব্যাটাররা যেখানে ব্যর্থ, সেখানে উইকেটে পড়ে থেকে, অহেতুক কোনও ভুল শট না খেলে প্রোটিয়া বোলারদের সামলালেন। একটি ভুল শট খেললেন, তাতে উইকেট খোয়াতে হল। ভারতের আশাও ওই একটি শটেই শেষ।

পাঠকের মতামত:

ক্রিকেট এর সর্বশেষ খবর

ক্রিকেট - এর সব খবর



রে