| ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

নির্বাচনের ১০০ কেন্দ্রের ফলাফল প্রকাশ,জেনেনিন ফলাফল

২০২২ জানুয়ারি ১৬ ১৮:৪১:২৮
নির্বাচনের ১০০ কেন্দ্রের ফলাফল প্রকাশ,জেনেনিন ফলাফল

বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের (নাসিক) ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। এবার ভোটের মাঠে মেয়র পদে ছয়, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ৩৪ এবং সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ১৪৫ জনসহ মোট ১৮৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

নাসিক নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সমাপ্ত হয়েছে বিকাল চারটায়। তারপর থেকে অধিকাংশ কেন্দ্রে ভোট গণনা শুরু হয়েছে। কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত ফলাফল রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে পাঠানো হবে। সেখান থেকে ফলাফল ঘোষণা করা হবে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, প্রাপ্ত কেন্দ্র-১০০, আইভী: ৮২৩২৬ ও তৈমুর: ৪৯২৩১

আরও পড়ুন: দুই ব্র্যান্ডের প্রচারণায় জন্ম কোক স্টুডিওর: বাংলাদেশে আসছে কোক স্টুডিও বেশ কয়েকবছর ধরেই বিশ্বব্যাপী সংগীতের বড় আসর হিসেবে পরিচিত কোক স্টুডিও। জানেন কি কীভাবে আসে এই ফিউশনধর্মী সংগীতমঞ্চ কোক স্টুডিওর ধারণা?

২০০৭ সালে নতুন একটি মোবাইল সেটের প্রচারণা চালানোর জন্য কোমল পানীয় কোম্পানি কোকা-কোলার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয় মোবাইল কোম্পানি নোকিয়া। তখন বাজারে কেবল ঢুকেছে কোকা কোলার ডায়েট কোক। দুইটি ব্র্যান্ডের সম্মিলিত প্রচারণার জন্য একটি উদ্ভাবনী পরিকল্পনা নিয়ে আসে কোকা-কোলা ব্রাজিল। তারা সিদ্ধান্ত নেয় বিভিন্ন গানের মিশ্রণে নিজস্ব স্টুডিওতে একটি লাইভ কনসার্ট করার। সেখানেই কোক স্টুডিওর ভাবনার প্রথম বীজ বপন করা হয়েছিল।

ব্রাজিলে এককালীন প্রচারণার নাম করে যাত্রা শুরু হলেও কোক স্টুডিওর পরিধি ছুঁয়েছে ভারতীয় উপমহাদেশের সঙ্গীতপ্রেমীদের হৃদয়। সূচনার ১৫ বছর পর, এবছর বাংলাদেশেও অভিষেক ঘটতে যাচ্ছে কোক স্টুডিওর। নকিয়া এবং কোকা-কোলা জিরো, এই দুই ব্র্যান্ডের সম্মিলিত শক্তি জন্ম দিয়েছে কোক স্টুডিওর ভাবনার।

তবে, এই ব্র্যান্ডের মিশ্রণ থেকেই গান মিশ্রণের চিন্তা এসেছিল কি না, তা জানা যায়নি। তাছাড়া, কোক-স্টুডিওর সাফল্যের পিছনে মূল শব্দ এটিই- ‘মিশ্রণ’ বা ফিউশন। ব্রাজিলে সাফল্য পাওয়ার পরের বছর, ২০০৮ সালে পাকিস্তানে একইরকম পরিকল্পনা নিয়ে ঘাটি বাধে কোকা-কোলা। ধীরে ধীরে ক্লাসিক্যাল, ফোক, সুফি, কাওয়ালি, ভাংড়া, হিপ হপ, রক, পপ; সব ধরনের গানের আস্তানা হয়ে উঠে কোক স্টুডিও।

তাদের ট্যাগলাইনই হয়ে যায়, ‘সাউন্ড অব দ্য ন্যাশন’ অর্থাৎ জাতির কণ্ঠস্বর। পাকিস্তানের পর ২০১১ সালে ভারতেও আস্তানা গাড়ে কোক স্টুডিও। কিন্তু বলিউডের জনপ্রিয়তার কাছে শেষ পর্যন্ত হার মানতে হয় তার। ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত চারটি টিভি মৌসুম উপহার দিয়ে বন্ধ হয়ে যায় কোক স্টুডিও ইন্ডিয়া।

সুরের ফিউশন যাত্রায় এবার বাংলাদেশেও পা রাখছে কোক স্টুডিও। কিছুদিন আগে থেকে প্রথম মৌসুমের দৃশ্যধারণ শুরু করে দিয়েছে স্টুডিওটি। এরই মধ্যে বাপ্পা মজুমদার, অর্ণব, মমতাজ, পান্থ কানাই, কনাসহ জনপ্রিয় অনেক সংগীতশিল্পী অংশ নিয়েছেন রেকর্ডিংয়ে।

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে