| ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬

আফগানদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে যা বললেন সাকিব

২০১৯ সেপ্টেম্বর ১৫ ১২:০৬:৪১
আফগানদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে যা বললেন সাকিব

অনুশীলন ছিল ঐচ্ছিক। দলের সবাইকে তাই অনুশীলনে দেখা যায়নি। মিরপুর স্টেডিয়ামের ইনডোরে গতকাল অনুশীলন করেছে বাংলাদেশের আট ক্রিকেটার। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মেহেদী হাসান, সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন, সাব্বির রহমান, তাইজুল ইসলামরা অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়েছেন।সবার অনুশীলন শেষ হয়ে যাওয়ার পরও ভারপ্রাপ্ত ফিল্ডিং কোচ সোহেল ইসলামের সঙ্গে ইনডোরের নেটে বোলিং করেছেন সাকিব। স্থানীয় এ কোচ স্পিন বিশেষজ্ঞ। তার সঙ্গেই নিজের বোলিং ঝালিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় দেখা গেছে বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারকে।

শুক্রবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করেছে বাংলাদেশ। অনেক দিন পর পাওয়া জয়টা স্বস্তি এনে দিয়েছে স্বাগতিকদের মাঝে। ত্রিদেশীয় সিরিজে আজ আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়।

টি-২০ তে বাংলাদেশের চেয়ে অনেক শক্তিশালী দল আফগানরা। পরিসংখ্যান অন্তত আফগানদের পক্ষেই থাকছে। এই ফরম্যাটে দুই দলের সাক্ষাত্ হয়েছে চার বার। যার মধ্যে তিনবারই জিতেছে আফগানিস্তান। গত বছর দেরাদুনে তিন ম্যাচের সিরিজে বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ করেছিল তারা। বাংলাদেশ একবারই হারাতে পেরেছিল আফগানদের। সেটা ২০১৪ টি-২০ বিশ্বকাপে এই মিরপুরেই।

ঘরের মাঠে আফগানদের হারানোর ক্ষমতা আছে বাংলাদেশের, এমনটাই বিশ্বাস করেন বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ নেইল ম্যাকেঞ্জি। গতকাল অনুশীলন শেষে তিনি বলেছেন, আজ জয়ের জন্যই খেলতে নামবে বাংলাদেশ। আফগান স্পিনারদের খেলার পরিকল্পনাও করেছে টাইগাররা।

ম্যাকেঞ্জি বলেছেন, ‘আমি যদি ভাবতাম যে আমরা হেরে যাব, তাহলে আমি এখানে থাকতাম না। আমি মনে করি দর্শকরাও এটা জেনে মাঠে আসত না। ঘরের মাঠে বাংলাদেশের রেকর্ড অনেক ভালো। রেকর্ডের পাতায় চোখ দিলেই দেখতে পারবেন। যদি এটা না হতো তাহলে তো আমি এখানে কোচিং করাতাম না। আমার বিশ্বাস, আমাদের এখানে যে-ই খেলতে আসুক, আমরা তাদের হারাতে পারি, আর স্বাগতিক হিসেবে আমাদের জেতা উচিত। আমাদের সেই প্রতিভা আছে।’

দর্শকসহ মিডিয়াকে সাকিবদের পাশে থাকার অনুরোধ করেছেন ম্যাকেঞ্জি। অনেক সময় নিজেরাই নিজেদের শত্রু হয়ে যাই এবং দলের ওপর বেশি চাপ দিয়ে ফেলি বলে মন্তব্য করেছেন এ প্রোটিয়া কোচ।

গতকাল তিনি বলেছেন, ‘আমি মনে করি মাঝে মাঝে আমরাই আমাদের সব থেকে বাজে শত্রু হয়ে যাই। নিজেদের ওপর অনেক বেশি চাপ নিয়ে ফেলি। নিজেদের ওপর বিশ্বাস রাখাটা খুব জরুরি। দলের সবাইকে সবার ওপর আস্থা রাখতে হবে, দর্শক এবং মিডিয়াকেও খেলোয়াড়দের ওপর এ বিশ্বাসটা রাখতে হবে। সময় দিতে হবে, তারা যন্ত্র না, মানুষ।’

আফগানের স্পিন আক্রমণই বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড়ো চ্যালেঞ্জ। রশিদ খান, মুজিব ও নবীকে নিয়ে গড়া স্পিন আক্রমণ অতীতেও বাংলাদেশকে পরীক্ষায় ফেলেছিল। ম্যাকেঞ্জি বলছেন, রশিদ-নবীদের সামাল দিতে প্রস্তুত আছে বাংলাদেশ।

গতকাল ম্যাকেঞ্জি বলেছেন, ‘আমরা জানি তারা কী করবে। আমরা চ্যালেঞ্জগুলোও জানি এবং আমাদের নিজেদের খেলাটা খেলতে হবে। আমাদের বড়ো বিষয় হলো, আপনি যখন নিজের কাজের ওপর অবিশ্বাস করতে শুরু করবেন, তখন নিজের স্বাভাবিক ক্রিকেটটা খেলবেন না। আমাদের কোনো ব্যাটসম্যান ভাবুক যে, এটাই আমার শেষ সুযোগ এমনটা আমি দেখতে চাই না। আমাদের ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে হবে বাংলাদেশের জন্য।’

পাঠকের মতামত:

ক্রিকেট এর সর্বশেষ খবর

ক্রিকেট - এর সব খবর



রে