| ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬

রাজ্জাকের দাফনের সময় যে অবস্থা হয়েছিলো বাপ্পারাজ ও বাপ্পির,দেখুন

২০১৭ আগস্ট ২৩ ১৩:২৪:৫৬
রাজ্জাকের দাফনের সময় যে অবস্থা হয়েছিলো বাপ্পারাজ ও বাপ্পির,দেখুন

নায়করাজ রাজ্জাককে সমাহিত করা হলো বনানী কবরস্থানে। রাত থেকেই বৈরি আবহাওয়া। থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। পথে তৈরি হয়েছে জলাবদ্ধতা। রয়েছে দীর্ঘ যানজট। এই সব কিছু উপেক্ষা করে প্রিয় মানুষটিকে শেষবারের মতো সম্মান জানাতে ছুটে এসেছেন অনেকে। পরিবারের পাশাপাশি তাদের মধ্যে ছিলেন চলচ্চিত্র ও গণমাধ্যমের মানুষজন।

ইউনাইটেড হাসপাতালের শবহিমাগার থেকে আজ ২৩ আগস্ট বুধবার সকাল ১০টায় নায়করাজ রাজ্জাকের মরদেহ নিয়ে আসা হয় বনানী কবরস্থানে। এ সময় এখানে উপস্থিত ছিলেন নায়করাজ রাজ্জাকের তিন ছেলে বাপ্পারাজ, বাপ্পি ও সম্রাট; চিত্রনায়ক উজ্জ্বল, শাকিব খান ও ফেরদৌস এবং রাজ্জাকের পরিবারের মানুষজন। দাফনের সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন বাপ্পারাজ ও বাপ্পি।

দাফনের পর সম্রাট বলেন, ‘আপনারা আমাদের পাশে সব সময় ছিলেন। সেজন্য ধন্যবাদ। আমরা মেজ ভাইয়ের জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। তিনি এসেছেন। আমরা তিন ভাই মিলে দাফন করেছি। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন।’

শাকিব খান বলেন, ‘আমাদের ইন্ডাস্ট্রি দাঁড় করিয়েছেন তিনি। তিনি আমাকে ছেলের মতো দেখতেন। আদর করতেন। বিভিন্ন সময় নানা বিষয়ে পরামর্শ দিতেন, উপদেশ দিতেন।’

নায়করাজ রাজ্জাককে সমাহিত করা হলো বনানী কবরস্থানে। রাত থেকেই বৈরি আবহাওয়া। থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। পথে তৈরি হয়েছে জলাবদ্ধতা। রয়েছে দীর্ঘ যানজট। এই সব কিছু উপেক্ষা করে প্রিয় মানুষটিকে শেষবারের মতো সম্মান জানাতে ছুটে এসেছেন অনেকে। পরিবারের পাশাপাশি তাদের মধ্যে ছিলেন চলচ্চিত্র ও গণমাধ্যমের মানুষজন।

ইউনাইটেড হাসপাতালের শবহিমাগার থেকে আজ ২৩ আগস্ট বুধবার সকাল ১০টায় নায়করাজ রাজ্জাকের মরদেহ নিয়ে আসা হয় বনানী কবরস্থানে। এ সময় এখানে উপস্থিত ছিলেন নায়করাজ রাজ্জাকের তিন ছেলে বাপ্পারাজ, বাপ্পি ও সম্রাট; চিত্রনায়ক উজ্জ্বল, শাকিব খান ও ফেরদৌস এবং রাজ্জাকের পরিবারের মানুষজন।

দাফনের পর সম্রাট বলেন, ‘আপনারা আমাদের পাশে সব সময় ছিলেন। সেজন্য ধন্যবাদ। আমরা মেজ ভাইয়ের জন্য অপেক্ষা করেছিলাম। তিনি এসেছেন। আমরা তিন ভাই মিলে দাফন করেছি। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন।’

শাকিব খান বলেন, ‘আমাদের ইন্ডাস্ট্রি দাঁড় করিয়েছেন তিনি। তিনি আমাকে ছেলের মতো দেখতেন। আদর করতেন। বিভিন্ন সময় নানা বিষয়ে পরামর্শ দিতেন, উপদেশ দিতেন।’

কথা ছিল গতকাল ২২ আগস্ট মঙ্গলবার বিকেলে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে নায়করাজ রাজ্জাককে। কিন্তু না, তার মেজ ছেলে রওশন হোসেন বাপ্পি কানাডা থেকে তখনো দেশে এসে পৌঁছাতে পারেননি। আজ ভোর ৪টায় বাপ্পি দেশে এসে পৌঁছেছেন। সম্রাট জানান, আগামী শুক্রবার বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে রাজ্জাকের কুলখানি অনুষ্ঠিত হবে।

গতকাল ২২ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানান নায়করাজ রাজ্জাককে। এর আগে সকালে রাজ্জাকের দীর্ঘ দিনের কর্মস্থল এফডিসিতে প্রথম জানাজা এবং বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এখানে সম্রাট বলেন, ‘বাবাকে ক্ষমা করে দিয়েন। দোয়া করবেন সবাই। দেনা পাওনা থাকলে আমাদের তিন ভাইকে জানাবেন। বাবা যখন মারা যান আমরা সবাই পাশে ছিলাম। বাবার মৃত্যু হয়েছে শান্তির মৃত্যু।’

গুলশান আজাদ মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে নায়করাজ রাজ্জাকের মরদেহ ইউনাইটেড হাসপাতালের শবহিমাগারে রাখা হয়। গত ২১ আগস্ট সোমবার সন্ধ্যায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে মারা যান নায়করাজ রাজ্জাক।

পাঠকের মতামত:

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে